| | সোমবার, ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি |

সারাদেশে একযোগে করোনার গণটিকা শুরু

প্রকাশিতঃ ৫:৩৭ অপরাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ০৭, ২০২১

somoy news

সময় নিউজ ডেস্ক :মহামারী থেকে মুক্তির প্রত্যাশার মধ্যে করোনাভাইরাসের টিকাদান শুরু হল সারা দেশে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক রোববার সকাল ১০টা মহাখালী স্বাস্থ্য ভবনে ভার্চুয়ালি টিকাদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

তার আগেই সকাল ৯টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) টিকা নেন সুপ্রিম কোর্টের তিনজন বিচারক। আর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে প্রথম টিকা নেন দীপংকর ঘোষ নামে একজন চিকিৎসক।

প্রথম দিনে ঢাকাসহ সারা দেশে ১০১৫টি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে টিকা দেওয়া হচ্ছে, যার মধ্যে ঢাকায় রয়েছে ৫০টি কেন্দ্র। সোমবার থেকে প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বেলা আড়াইটা পর্যন্ত এসব কেন্দ্রে টিকা দেওয়া হবে।ঢাকায় ২০৪টি এবং ঢাকার বাইরে ২ হাজার ১৯৬টি স্বাস্থ্যকর্মীদের দল এসব কেন্দ্রে সরাসরি টিকাদানে নিয়োজিত রয়েছেন।

ধারাবাহিকভাবে করোনাভাইরাসের টিকা দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্যকর্মী ও স্বেচ্ছাসেবকদের নিয়ে মোট ৭ হাজার ৩৪৪টি দল প্রস্তুত করা হয়েছে। টিকা নিতে আগ্রহী সবাইকেই আগে নিবন্ধন করতে হচ্ছে। শনিবার পর্যন্ত নিবন্ধন করেছেন তিন লাখের বেশি মানুষ।

ঢাকা মেডিকেল কলেজে টিকাদান শুরুর পর হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাজমুল হক বলেন, তার হাসপাতালে টিকা নিতে তিন হাজারের বেশি মানুষ নিবন্ধন করেছে। রোববার সেখানে চারশ থেকে পাঁচশ জনকে টিকা দেওয়া যাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। নাজমুল হক জানান, ঢাকা মেডিকেলে চারটি বুথের মাধ্যমে টিকা দেওয়া হচ্ছে। টিকা দেওয়ার পর ২০ থেকে ৩০ মিনিট পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে সবাইকে।

কারও কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেলে সেজন্যও ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। তবে তেমন কোনো প্রতিক্রিয়া এখনও দেখা যায়নি বলে জানান তিনি। বাংলাদেশে দেওয়া হচ্ছে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে তৈরি অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনাভাইরাসের টিকা। সবাইকে এ টিকার দুটি ডোজ নিতে হবে।

এই টিকার তিন কোটি ডোজ পেতে সেরাম ইনস্টিটিউটের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে বাংলাদেশের, যার মধ্যে ৫০ লাখ ডোজ হাতে পাওয়ার পর জেলায় জেলায় পৌঁছে দেওয়া হয়েছে আগেই। এছাড়া ভারত সরকারের উপহার হিসেবে পাওয়া গেছে আরও ২০ লাখ ডোজ টিকা।

বাংলাদেশে এই টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগ না হওয়ায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল অনুযায়ী গত ২৭ জানুয়ারি ৫২৭ জনকে টিকা দেওয়া হয়। তাদের কারও মধ্যে টিকার গুরুতর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা না যাওয়ায় পরিকল্পনা মতো রোববার গণ টিকাদান শুরু হল।

এই টিকা নিরাপদ এবং করোনাভাইরাস প্রতিরোধে কার্যকর বলে প্রমাণ পাওয়ার কথা জানিয়েছে যুক্তরাজ্যের ওষুধ নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ। জাতীয়ভাবে কোভিড-১৯ টিকা বিতরণ ও প্রস্তুতি পরিকল্পনা অনুযায়ী, তিন ভাগে (ফেইজ) মোট পাঁচ ধাপে এসব টিকা দেওয়া হবে। কোভিড-১৯ মহামারী প্রতিরোধে সামনের কাতারে থাকা মানুষ প্রাধান্য পাবেন।

Matched Content

সময় নিউজ ডট নেট এর কোনো সংবাদ,তথ্য,ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।


Shares